Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

যুবউন্নয়ন অধিদপ্তর যে সব  সেবা যে ভাবে প্রদান করে তার বিস্তারিত বিবরণ নিম্নে প্রদত্ত হলোঃ

১। প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত সেবা সমূহ

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর সাধারণত ২ধরণের প্রশিক্ষন সেবা দিয়ে থাকে।
ক) প্রাতিষ্ঠানিক  ট্রেডে প্রশিক্ষন।
খ) অপ্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে প্রশিক্ষন।

 প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ ট্রেড  সমুহঃ

ট্রেডেরনামঃ
১।গবাদিপশু, হাঁস-মুরগী পালন উহাদের প্রাথমিক চিগিৎসা, মৎস চাষ ও কৃষি  বিষয়ক প্রশিক্ষণ কোর্স।

মেয়াদঃ ২ মাস ১৫ দিন।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় জুলাই, অক্টোবর,জানুয়ারী ও এপ্রিল মাসের ১৫তারিখ।
আসন সংখ্যা- ৬০ জন( আবাসিক)।
শিক্ষাগত যোগ্যতা– ৮ম শ্রেণী পাস।
কোর্সফি-১০০টাকা।
প্রতিমাসে প্রশিক্ষণার্থীদের ১২০০টাকা ভাতা প্রদান করা হয়।

। পোষাক তৈরী

§  মেয়াদ– ৪মাস

§  প্রশিক্ষণ শুরুর সময়- জুলাই ও জানুয়ারী মাসের১তারিখ।

§  আসন সংখ্যা- ৪০জন।( অনাবাসিক)।

§  শিক্ষাগত যোগ্যতা– ৮মশ্রেণীপাস।

§  কোর্সফি– ৫০টাকা।

৪। ৎসচাষ

§  মেয়াদ-১মাস।

§  প্রশিক্ষণ শুরুর সময়– প্রতিমাসের ১তারিখ।

§  আসন সংখ্যা– ২০জন।

§  শিক্ষাগত যোগ্যতা– ৮ম শ্রেণী পাস।

§  কোর্সফি– ৫০টাকা।

৫।কম্পিউটার

§  মেয়াদ-৬মাস।

§  প্রশিক্ষণশুরুরসময়– জানুয়ারীওজুলাই  মাসের১তারিখ।

§  আসনসংখ্যা– ৪০জন।

§  শিক্ষাগতযোগ্যতা– এইসএসসিশ্রেণীপাস।

§  কোর্সফি– ১০০০টাকা।

৬।রেফ্রিজারেশনএন্ডএয়ারকন্ডিশনিং

§  মেয়াদ-৬মাস।

§  প্রশিক্ষণশুরুরসময়– প্রতিজানুয়ারী– জুলাই  মাসের১তারিখ।

§  আসনসংখ্যা– ৩০জন।

§  শিক্ষাগতযোগ্যতা– ৮মশ্রেণীপাস।

§  কোর্সফি– ৩০০টাকা।

৭।ইলেক্ট্রনিক্স ।

§  মেয়াদ-৬মাস।

§  প্রশিক্ষণশুরুরসময়– প্রতিজানুয়ারী– জুলাই  মাসের১তারিখ।

§  আসনসংখ্যা– ৩০জন।

§  শিক্ষাগতযোগ্যতা– ৮মশ্রেণীপাস।

§  কোর্সফি– ৩০০টাকা।

প্রশিক্ষণসমুহ  গ্রহণে আগ্রহী জেলার বেকার যুবক/যুব মহিলাগন  যোগাযোগ করবেন।

অপ্রাতিষ্ঠানিক( ভ্রাম্যমান) ট্রেডসমূহঃ

সাধারণত উপজেলা পর্যায়ে অপ্রাতিষ্ঠানিক বা ভ্রাম্যমান প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা যুবসংগঠন/ ক্লাবে এপ্রশিক্ষণের ভেন্যু হেসেবে ব্যাবহার করা হয়। যেহেতু প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয় সেহেতু বেকার যুবদের এপ্রশিক্ষণ গ্রহন খরচ  ওসময় কম হয়। অপ্রাতিষানিক প্রশিক্ষণ গ্রহনে বেকার যুবদের কোন প্রকার প্রশিক্ষণ ফি প্রদান করতে হয় না। যে সমস্ত ট্রেডে অপ্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় তা নিম্নরূপঃ

§  পারিবারিকহাঁসমুরগিপালন

§  গরুমোটা-তাজাকরন।

§  গাভিপালন।

§  বসতবাড়ীতেসব্জীচাষ।

§  নার্সারিবনায়ন।

§  ছাগলপালন।

§  মৎসচাষ।

§  পোষাকতৈরি।

§  এবং স্থানীয় চাহিদার ভিত্তিতে ট্রেড নির্ধারন করে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

ঋনকর্মসূচি

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর সাধারণত দুই  ধরণের ঋণ দিয়ে থাকে।

১) ব্যক্তিঋণ।
২) গ্রুপঋণ

ব্যক্তিঋন/যুবঋন:- শুধু যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষন গ্রহনের পর লাভজনক প্রকল্প গ্রহণকারীকে এ ঋণ প্রদান করা হয়। ব্যাক্তিগত ঋণ আবার দুই প্রকার।
1) প্রাতিষ্ঠানিক:- প্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীর অনুকূলে যে ঋণ প্রদান করা হয় এবং যার পরিমান  সর্বোচ্চ৭৫০০০/হাজার টাকা।

2) অপ্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে প্রশিক্ষন গ্রহণকারি যুবদের প্রকল্পের কলেবর বৃদ্ধির জন্য সর্বোচ্চ ২৫০০০/পঁচিস হাজার টাকা পর্যন্ত এ শ্রেণীর আওতায় ঋণ প্রদান করা হয়।

সফলভাবে ঋন পরিশোধকারীকে ৩বার ঋন প্রদান করা হয়। ঋণের সার্ভি সচার্জের পরিমাণ ১০% যা ক্রমহ্রাসমানহারে ৫% এ নির্ধারি তহয়।

যুব সংগঠনকে অনুদান প্রদানঃ

যুব সংগঠনসমূহকে দেশ গঠনমূলক কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য আর্থিক সহায়তা  প্রদানের নিমিত্ত যুবওক্রীড়ামন্ত্রণালয় কর্তৃক যুব কল্যাণ তহাবিল হতে প্রতি বছর অনুদান প্রদান করা হয়।তাছাড়া কর্মসূচি সুষ্ঠভাবে বাস্তবায়নের জন্য সংগঠনসমূহকে অনুন্নয়ন খাত থেকে ও অনুদান দেয়া হয়

জাতীয় যুব পুরস্কার-

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর হতে প্রশিক্ষণ গ্রহন পূর্বক  আত্বকর্মসংস্থানে সফলতা অর্জন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে  এবং যাদের সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনে ভুমিকা আছে  সে  সকলযুব/যুব মহিলা প্রকল্প গ্রহন  কারীকে জাতীয় যুব পুরস্কার প্রদান করা হয়।তাছাড়া যুব সংগঠক যারা যুব উন্নয়ন কর্মকান্ডে অনন্য অবদান রাখে তাদের মধ্য থেকে জাতীয় যুব পুরস্কার প্রদান করা হয়।